Friday, 29 May 2020

   10:18:53 AM

logo
রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ কর্তৃক ‘‘কমিউনিটি পুলিশিং ডে’’-২০১৯ উদযাপন

7 months ago

২৬/১০/২০১৯ ইং তারিখ রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের উদ্যেগে ‘‘কমিউনিটি পুলিশিং ডে’’-২০১৯ উদযাপিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব মোহাম্মদ আবুল কাশেম, বিপিএম-সেবা, অতিরিক্ত মহাপুলিশ পরিদর্শক, এন্টি টেরোরিজম ইউনিট, বাংলাদেশ পুলিশ। আরো উপস্থিত ছিলেন মহিলা সংরক্ষিত আসন রাজশাহী-৫ আসন এর মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব মিতা হক, প্রফেসর জনাব মোঃ আব্দুল খালেক, আহবায়ক, কমিউনিটি পুলিশিং সমন্বয় কমিটি, রাজশাহী মহানগর সহ অন্যান্য আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ। এই অনুষ্ঠান উপলক্ষে সকাল ১০.৩০ টায় বোয়ালিয়া থানাধীন আলুপট্টি হতে বর্ণাঢ্য আনন্দ র‌্যালী শুরু হয়। র‌্যালীর শুরুতে অতিথিবৃন্দ রংবেরঙের বেলুন-ফেস্টুন ও কবুতর উড়িয়ে কমিউনিটি পুলিশিং ডে-২০১৯ এর শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন। র‌্যালীটি নগরীর আলুপট্টি  হতে শুরু হয়ে রাজশাহী কলেজ অডিটরিয়ামে এসে শেষ হয়। র‌্যালীতে রাজশাহী মহানগরীর থানা, ওয়ার্ড ও স্টুডেন্ট কমিউনিটি পুলিশিং এর সদস্যবৃন্দ, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সাধারণ জনগণ অংশ গ্রহণ করেন। র‌্যালী শেষে রাজশাহী কলেজ অডিটরিয়ামে কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে আলোচনা সভা শুরু হয়। উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন জনাব মোঃ হুমায়ুন কবির, বিপিএম, পিপিএম, পুলিশ কমিশনার, আরএমপি। আলোচনায় সভায় আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ কমিউনিটি পুলিশিং সম্পর্কে বিভিন্ন বক্তব্য প্রদান করেন। সভায় প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে মাদক-জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাস প্রতিরোধে কমিউনিটি পুলিশিং ডে এর বিভিন্ন সফলতার দিক তুলে ধরেন। কমিউনিটি পুলিশং এর মাধ্যমে পুলিশ ও জনসাধারণের মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরি করে মাদক-জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাস নির্মূল করা সম্ভব বলে জানান। একই সাথে গুজব সংক্রান্তে সর্ব সাধারণকে সচেতন থাকার পাশাপাশি এলাকার জনপ্রতিনিধি, সুধীসমাজ, কমিউনিটি পুলিশিং এর প্রতিনিধিকে এই সংক্রান্তে সচেতনা বৃদ্ধির লক্ষে ঘরোয়া বৈঠকের আয়োজন করার অনুরোধ করেন। আলোচনা শেষে কমিউনিটি পুলিশিং এর কার্যক্রমে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য ০৪ জন শ্রেষ্ঠ কমিউনিটি পুলিশিং কর্মকর্তা ও ০৮ জন শ্রেষ্ঠ কমিউনিটি পুলিশিং সদস্যদের মাঝে ক্রেস্ট ও সনদপত্র বিতরণ করা হয়। সভাপতির বক্তব্যে পুলিশ কমিশনার মহোদয় কমিউনিটি পুলিশিং এর মাধ্যমে মাদক-জঙ্গী-সন্ত্রাসমুক্ত দেশ গড়তে সকলের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করেন। আলোচনা সভা শেষে একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয়।